শুক্রবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২৩, ০৫:৩৮ অপরাহ্ন

১০ বছরেও উদ্বোধন হয়নি স্মৃতিস্তম্ভ!

রিপোর্টারের নাম
  • আপডেট টাইম: শনিবার, ২৭ মার্চ, ২০২১
  • ২০৫ বার পাঠিত
১০ বছরেও উদ্বোধন হয়নি স্মৃতিস্তম্ভ!

সাকিব আল হাসান, রৌমারী(কুড়িগ্রাম): অযত্ন আর অবহেলায় চিলমারী মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্তম্ভ। ২০১২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে প্রায় ২২ লাখ ১ হাজার ৫৫২ টাকা ব্যয়ে উপজেলার বালাবাড়ীহাট রেল স্টেশনের পাশে নির্মিত হয় এটি। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে এটির নির্মাণকাজ বাস্তবায়ন করে গণপূর্ত বিভাগ। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী স্মৃতিস্তম্ভের সাদা ফলকে উৎকীর্ণ করা হয় বালাবাড়ী রেলওয়ে স্টেশন এলাকার পাকবাহিনী ও তাদের দোসরদের নৃশংসতার ইতিহাস। ১৯৭১ সালের ১৭ই অক্টোবরের পাক হানাদার বাহিনীর সঙ্গে মুক্তিবাহিনীর সম্মুখ যুদ্ধের কথা তুলে ধরা হয়। কিন্তু অযত্নে সেটি নষ্ট হওয়ায় পথে।

১৯৭১ সালে উপজেলার বালাবাড়ী রেলওয়ে স্টেশন পাকবাহিনীর একটি শক্ত ঘাঁটি ছিল। বৃহত্তর রংপুর জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে পাক-হানাদার বাহিনী ও তাদের এদেশীয় দোসর রাজাকার, আলবদর বাহিনী মুক্তিযোদ্ধা ও স্বাধীনতাকামী জনগণকে ধরে এনে ওইস্থানে অমানুষিকভাবে নির্যাতন করে নৃশংসভাবে হত্যা করতো।

এমনকি গায়ে পাট বেঁধে কেরোসিন দিয়ে আগুন লাগিয়ে দেয়া হতো। শুধু তাই নয়, বাঙালি নারীদের দিনের পর দিন আটকে রেখে ধর্ষণ ও নির্যাতন করে হত্যাকাণ্ড চালানো হতো।

১৭ই অক্টোবর মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে পাকবাহিনীর তুমুল যুদ্ধ হয়। দেশের স্বাধীনতার জন্য জীবনবাজি রেখে সম্মুখ যুদ্ধ করতে গিয়ে অনেকে শহীদ হন। যুদ্ধে আনুমানিক ২০ পাক-হানাদার বাহিনী নিহত হয়। অনেক রক্তের বিনিময়ে বালাবাড়ী রেলওয়ে স্টেশন শত্রুমুক্ত হয়। সম্মুখযুদ্ধটি পরিচালনা করেছিলেন ১১নং সেক্টর কমান্ডার কর্নেল তাহের। স্মৃতিস্তম্ভটি নির্মিত হওয়ায় বিশেষ করে এলাকার মুক্তিযোদ্ধারা অত্যন্ত খুশি হলেও এটি উদ্বোধনের অপেক্ষায় দীর্ঘ ৯ বছর পেরিয়ে গেছে।

সরেজমিন দেখা যায়, স্মৃতিস্তম্ভটি দীর্ঘদিন অযত্ন-অবহেলায় পড়ে থাকায় এর চারদিকে ঘেরা নিরাপত্তা বলয়ের লোহার বেষ্টনীতে মরিচা ধরেছে। প্রায় স্থান ভেঙে গেছে। কতিপয় মানুষ ডাস্টবিন, ধান শুকানোর চাতাল এবং কিছু নেশাখোর রাতে আড্ডাখানা বানিয়ে রেখেছে।

এলাকাবাসীর দাবি, স্মৃতিস্তম্ভটি জনসাধারণের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য উন্মুক্ত করা হোক।

এ ব্যাপারে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সাবেক কমান্ডার আঃ রহিম বলেন, স্মৃতিস্তম্ভটি উদ্বোধন করে সকলের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য উন্মুক্ত করা জরুরি। স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা ও বৃদ্ধারা বলেন, এটি কেন উন্মুক্ত করা হচ্ছে না, তা আমারও বুঝে আসছে না।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার এডব্লিউএম রায়হান শাহ্‌ এ প্রসঙ্গে বলেন, বিষয়টি নিয়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা হয়েছে, আশা করছি দ্রুত সমাধান হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন..

More News Of This Category
সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © 2020-2021 CNBD.TV    
IT & Technical Supported By: NXGIT SOFT
themesba-lates1749691102